মোদি তিন দেশ সফর শেষে দেশে ফিরলেন

আমাদের নতুন সময় : 20/05/2015

Untitled-1ইমরুল শাহেদ : চীন, মঙ্গোলিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়ায় ছয় দিনের সফর শেষ করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশে ফিরেছেন বলে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে। সেখানে ভারতের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে প্রতিটি দেশের সঙ্গে তিনি দ্বি-পক্ষীয় আলোচনা এবং বেশ কিছু চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন। বুসনের মেয়র সুহ বাইয়ুঙ-সোয়ের সঙ্গে বৈঠক শেষ করে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ট্যুইটার বার্তায় মোদি বলেছেন, ‘আমার দক্ষিণ কোরিয়া সফর অত্যন্ত সন্তোষজনক হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন-হুই এবং ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। ভারত-কোরিয়া সহযোগিতা সুশক্ত করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের সম্পর্ক আরও ভালো হবে এমন প্রত্যাশা নিয়ে আমি কোরিয়া ত্যাগ করেছি। আমাদের সম্পর্কের কারণে দু’দেশের জনগণই উপকৃত হবে।’ মোদি সফর শুরু করেছেন ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ শ্লোগান মাথায় নিয়ে। তিনটি দেশের নেতৃবৃন্দকেই তিনি ভারতে বিনিয়োগের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনটি দেশের মধ্যে তার শেষ সফর দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে প্রতিরক্ষা, বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি মনে করেন, তাদের দ্বি-পক্ষীয় সম্পর্ক গুণগতভাবেই আঞ্চলিক সহযোগিতার ক্ষেত্রে বড় ধরনের অবদান রাখবে। দক্ষিণ কোরিয়া ভারতকে ১০ বিলিয়ন ডলার সহযোগিতার প্রতিশ্র“তি দিয়েছে। এই অর্থ ব্যয় হবে অবকাঠামো, নগর উন্নয়ন, রেলওয়ে, বিদ্যুৎ খাত এবং অনান্য খাত যা তাদের বিশেষ কৌশলগত অংশীদারিত্বকে জোরদার করবে। প্রধানমন্ত্রী মোদি চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের জš§স্থান জিয়ান দিয়ে তিন দেশ সফর শুরু করেন। এখানে তিনি প্রেসিডেন্ট শিয়ের সঙ্গে পারস্পরিক আস্থা স্থাপন ও সীমানা বিষয়ে আলোচনা করেন। চীন সফর শেষ করেই মোদি যান মঙ্গোলিয়ায়। সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী চিমড শইখানবিলেগের সঙ্গে দ্বি-পক্ষীয় আলোচনা করেন এবং দু’দেশ অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে যাওয়ার প্রতিশ্র“তিবদ্ধ হন। প্রধানমন্ত্রী মঙ্গোলিয়াকে এক বিলিয়ন ডলার ঋণ দানের প্রতিশ্র“তি দেন। এই অর্থ মঙ্গোলিয়ার অবকাঠামো উন্নয়নে ব্যয় হবে। বেসামরিক পরমাণু ক্ষেত্রের উন্নয়নের জন্যও দু’দেশ কাজ করে যাবে বলে দুই নেতা একমত হন। পক্ষান্তরে মঙ্গলবার দক্ষিণ কোরিয়া ত্যাগের আগে রাজধানী সিওলে ষষ্ঠ এশিয়া লিডারশিপ কনফারেন্সে ভারতের প্রধানমন্ত্রী এশিয়ার দেশগুলির একতার পক্ষে কথা বলেছেন। তিনি জানিয়েছেন বিশ্বকে নতুন এক দিশা দেখাতে এবং বিশ্বের শাসন ব্যবস্থাকে সংশোধন করতে এশিয়ার দেশগুলির উচিৎ একযোগে কাজ করা। এ বিষয়ে তিনি রাষ্ট্রপুঞ্জের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন। ‘যদি এশিয়া এক সঙ্গে উন্নতির লক্ষ্যে এগোয়, তাহলে এ মহাদেশে প্রাদেশিক বিচ্ছিন্নতাবাদ দূর হবে।’ শত্র“তা ভুলে এশিয়ার দেশগুলির উচিৎ নিজেদের ঐতিহ্য ও যুবশক্তিকে কাজে লাগিয়ে এক উদ্দেশ্যে সামনে এগিয়ে চলা। মত মোদির। তিনি বলেছেন ‘এশিয়ার একতা পৃথিবীর গঠনে কার্যকরী হবে।’ এর সঙ্গেই তিনি যোগ করেছেন ভারত এশিয়ার সমস্ত দেশগুলির মধ্যে সমৃদ্ধি ভাগ করে নেওয়ার পক্ষপাতী, যেখানে একটি দেশের সাফল্য অনান্য দেশের শক্তি বৃদ্ধি করবে। এশিয়ার পুনরুত্থান এই যুগের শ্রেষ্ঠ বৈশিষ্ট্য। মোদি বলেছেন ভারতের অগ্রগতি সমগ্র এশিয়ার সাফল্যের নিদর্শন। এই সাফল্য এই মহাদেশের স্বপ্নকে বৃহত্তর বাস্তবের রূপ দেবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]