ধর্ষিতাদের জন্য রাষ্ট্রীয় ক্ষতিপূরণ

আমাদের নতুন সময় : 13/03/2019

তাসমিয়া আহমেদ : চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সাটুরিয়া পুলিশ স্টেশনের দুই কর্মকর্তার ধর্ষণের শিকার ২২ বছর বয়সী তরুণীকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। এ প্রসঙ্গে ডেইলি আওয়ার টাইমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ব্লাস্টের গবেষণা বিশেষজ্ঞ তাকবির হুদা জানান, ‘হাইকোর্টের এই রুলটি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। কারণ বাংলাদেশে এই প্রথম হাইকোর্টের রিট ধর্ষণের জন্য ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা বললো।’ তিনি আরও বলেন, ‘ধর্ষণ নারীর মৌলিক অধিকারের স্পষ্ট লঙ্ঘন। এর আগে, আমরা সড়ক ও শিল্প কারখানায় দুর্ঘটনার ফলে মৃত্যু এবং অবৈধভাবে আটকের মতো মৌলিক অধিকার লঙ্ঘনের জন্য সংবিধানের অধীনে ক্ষতিপূরণ দাবির ঘটনা দেখেছি। আমাদের চিন্তা করা উচিত যে, ধর্ষণ শুধু এক অপরাধই নয়, বরং আমাদের নারী ও মেয়েদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে রাষ্ট্রীয় দায়িত্বের ব্যর্থতাও বটে’।
ধর্ষণের অধিকাংশ শিকারই নারী। আমাদের সংবিধানের ৩২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, ধর্ষণ নারীর জীবন ও মর্যাদা নিশ্চিতের অধিকারের লঙ্ঘন। অনুচ্ছেদ ৩৬ অনুযায়ী, এটি নারীদের স্বাধীন চলাচলের অধিকারের পরিপন্থী। মানিকগঞ্জের এই ঘটনার ক্ষেত্রে অপরাধী নিজেই রাষ্ট্রীয় যন্ত্রের অংশ। রাষ্ট্রের দায়িত্ব লঙ্ঘন করায়, তাদের বিরুদ্ধে আরো উচ্চকিত হওয়া উচিত। তাকবির হুদা জানিয়েছেন, ‘এ কারণেই মানিকগঞ্জে ধর্ষণের ঘটনাটি সামনে আসার সাথে সাথেই সিসিবি ফাউন্ডেশন ও বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড সার্ভিসেস ট্রাস্ট ব্লাস্ট তাৎক্ষণিকভাবে রিটটি করে, যাতে বিচার ব্যবস্থা উপলব্ধি করতে পারে যে, ধর্ষণ নারীর মৌলিক অধিকারের লঙ্ঘন। এছাড়া বিশেষ করে যারা জনসাধারণের সাথে জড়িত ও গণকর্মকর্তা- যারা রাষ্ট্রের কাছে দায়বদ্ধ, তাদের দ্বারা ধর্ষণের মতো অপরাধের ঘটনার প্রতিরোধের পাশাপাশি সমাধানের জন্যও রিটটি করা হয়’।
তিনি আরো উল্লেখ করেছেন যে, ‘ধর্ষণ আইন সংস্কারের জন্য ২০১৮ সাল থেকে প্রচারণা শুরু করেছে ব্লাস্ট। এই প্রচারণায় ধর্ষণের শিকার বেঁচে যাওয়া নারীর ক্ষতিপূরণের অধিকারের স্বীকৃতি দেয়া সংস্থাটির অন্যতম দাবিগুলোর মধ্যে একটি। ক্ষতিপূরণও ধর্ষণকারীর এক ধরণের শাস্তি। কারণ আমাদের বিচার ব্যবস্থায় ধর্ষণের শিকার বেঁচে যাওয়া নারীটি পরবর্তীকালে কীভাবে তার জীবন এগিয়ে নেবে সে ব্যবস্থা নেই। আবার রাষ্ট্রও ধর্ষণ প্রতিরোধ ও প্রতিকারের জন্য সক্রিয় পদক্ষেপের মতো দায়িত্বকে অবহেলা করছে’। তাই তার মতে, হাইকোর্টের এই পদক্ষেপ ব্লাস্টের প্রচারণার জন্য একটি মাইল ফলক। তাকবির হুদার আশা, ধর্ষণের শিকার নারীদের জন্য জরুরি ভিত্তিতে রাষ্ট্রীয় ক্ষতিপূরণ তহবিল গঠনের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করবে সরকার। ক্ষতিপূরণের এই বিষয়টি বিশ্বের অন্যান্য দেশ এমনকি আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতেও রয়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]