ডিসেম্বরের মধ্যে ‘ফল’ চান ড. কামাল

আমাদের নতুন সময় : 09/06/2019

বিভুরঞ্জন সরকার
দেশে না থাকায় ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জেলে থাকায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ারও ঈদ-শুভেচ্ছা বিনিময় সম্ভব হয়নি। জাপা চেয়ারম্যান এরশাদ অসুস্থ, তাই ঈদ উপলক্ষে তারও কোনো জনসংযোগ কর্মসূচি ছিলো না। ঈদের দিন না হলেও পরদিন গণফোরাম ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন দলীয় কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। তিনি রাজনীতির মানুষ, তাই শুভেচ্ছা বিনিময় করতে গিয়ে কিছু রাজনৈতিক বক্তব্যও দিয়েছেন। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন জোরদার করার আহ্বান জানিয়ে কামাল হোসেন বলেছেন, এই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ফল আনতে হবে। ড. কামাল আরো বলেছেন, কি ধরনের আন্দোলনের মধ্য দিয়ে কি ফল আসবে তা নির্ধারণ করা হবে সরকারের আচরণের ওপর। কামাল হোসেনের এই বক্তব্যে কেউ নড়েচড়ে বসেছেন কিনা তা জানা যায়নি। তবে কারো কারো মধ্যে কিছু কৌতূহল তৈরি হয়েছে। ড. কামাল রাজনীতির ময়দানে কি বীজ বুনে ডিসেম্বরের মধ্যে কি ফল আশা করছেন, তা নিয়ে জল্পনাকল্পনা শুরু হয়েছে।
কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণ পরিবর্তনের অপেক্ষায় আছে। জনগণ যে পরিবর্তনের অপেক্ষায় আছে সেটা কামাল হোসেন বুঝলেন কীভাবে? জনগণের মনোভাব বোঝার জন্য তিনি কি কি করেছেন? জনগণের কোন কোন অংশের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন? তার দলের পক্ষ থেকে কোনো জনমত জরিপ করা হয়েছে কি ? নাকি এটা তার নিজের মনের কথা? তিনি কি আশা করছেন যে, দেশে ডিসেম্বরের মধ্যে কোনো পরিবর্তন ঘটবে? কি পরিবর্তন আশা করছেন তিনি? সরকার বদল হবে? কীভাবে? সরকার পরিবর্তনের নিয়মতান্ত্রিক পথ হলো নির্বাচন। তাহলে কি ডিসেম্বরের মধ্যে দেশে পুনরায় নির্বাচন হবে এবং সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ হেরে যাবে?
কামাল হোসেন বলেছেন, ‘যতো দ্রুত সম্ভব নির্বাচন দিতে হবে’। ড. কামাল চাইলেই সরকার নির্বাচন দিয়ে দেবে? না, ড. কামাল নিজেও তা মনে করেন না। বলেছেন, ‘সরকার নিজে থেকে নির্বাচন দেবে না আন্দোলনের মাধ্যমে তা আদায় করতে হবে’। এখন কাঁঠালের মওসুম। কামাল হোসেন হয়তো গাছে কাঁঠাল দেখে গোঁফে তেল দিয়ে বসেছেন। কামাল হোসেনের কি আন্দোলনের কোনো অভিজ্ঞতা আছে? তিনি কিংবা তার নতুন দোসর বিএনপির কি কোনো সফল আন্দোলন গড়ে তোলার অভিজ্ঞতা আছে? আন্দোলন কি কারো হুকুমে হয়?
কামাল হোসেন বয়সে পাকা হলেও রাজনীতিতে তিনি যে কাঁচা তার প্রমাণ এর আগে বহুবার পাওয়া গেছে। দেশে এখন কিংবা আগামী চার/ছয় মাসের মধ্যে কোনো আন্দোলন গড়ে ওঠার কোনো আলামত কি তিনি সত্যি দেখতে পাচ্ছেন? আন্দোলনের কথা বলে সরকারবিরোধীরা একধরনের সুখ অনুভব করে থাকেন। ছয়মাসও হয়নি সরকার নতুন জোশে ক্ষমতায় বসেছে। বিরোধী দলের শক্তি-সামর্থ্য একেবারে তলানিতে। অক্সিজেন দিয়ে বাঁচিয়ে রাখার অবস্থা। কামাল হোসেনের নাম আছে, কাম নেই। তার ডাকে দুইশ মানুষও রাস্তায় নামবে না। এই অবস্থায় আন্দোলনের মাধ্যমে ‘ফল’ পাওয়ার স্বপ্ন কেউ দেখলেও সে স্বপ্ন পূরণের কোনো বাস্তবতা দেশে বিরাজ করছে না।
লেখক : গ্রুপ যুগ্ম-সম্পাদক, আমাদের নতুন সময়


সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]