২০১৮ সালে ৫০ হাজার কোটি ডলার বিদেশী বিনিয়োগ পেয়েছে এশিয়া, বাংলাদেশে এসেছে ৩৬০ কোটি ডলার

আমাদের নতুন সময় : 15/06/2019

নূর মাজিদ : জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংস্থা, আঙ্কটাড তাদের চলতি বছরের ওয়ার্ল্ড ইনভেস্টমেন্ট রিপোর্টে জানিয়েছে, গতবছর এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশগুলোয় সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগের প্রবাহ ৩ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়েছে। যার মাঝে আবার সবচাইতে বেশি বিনিয়োগ প্রবাহ বাড়ে চীন, স্বায়ত্ব-শাসিত হংকং, সিঙ্গাপুর ও ইন্দোনেশিয়ার মতো দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে। এর বাহিরে দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত এবং মধ্যপ্রাচ্যে তুরস্ক সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ পেয়েছে। সূত্র : বেল্ট অ্যান্ড রোড নিউজ এজেন্সি।
২০১৮ সালে এটা পূর্বের বছরের তুলনায় ৬ শতাংশ বাড়ে। যা বিশ্বের মোট এফডিআইয়ের ৩৯ শতাংশ। এই বিষয়ে আঙ্কটাডের বিনিয়োগ ও ব্যবসা গবেষণা শাখার পরিচালক জেমস ঝান বলেন, ‘২০১৯ সালেও এই অঞ্চলে বিদেশী বিনিয়োগের প্রবাহ বাড়ার জোর সম্ভাবনা রয়েছে। মূলত, ইতিবাচক অর্থনৈতিক সম্ভাবনা এবং পুঁজি আকৃষ্টকরণে সরকারগুলোর উদ্যোগ এর নেপথ্যে বাড়তি প্রণোদনা যোগ করবে।’
পূর্ব এশিয়ায় গত বছরের চাইতে ৪ শতাংশ বেড়ে ২৮ হাজার কোটি ডলারের এফডিআই আসে। এসময় চীন পায় ১৩ হাজার ৯শ কোটি ডলারের বিনিয়োগ। এটা সারা বিশ্বের মোট এফডিআই প্রবাহের ১০ শতাংশ। দেশটিতে সে বছর বিদেশী বিনিয়োগকারীদের প্রতিষ্ঠিত ৬০ হাজার নতুন কো¤পানি যাত্রা শুরু করে। চীনের স্বশাসিত ভূখ- হংকংয়ে আসে ১১ হাজার ৬শ কোটি ডলার। এরপরেই তৃতীয় স্থানে রয়েছে উন্নত দেশ দক্ষিণ কোরিয়া। তবে দেশটিতে এফডিআই প্রবাহ ১৯ শতাংশ কমে ১ হাজার ৪শ কোটি ডলারে এসে দাঁড়ায়।
দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় গতবছর রেকর্ড পরিমাণ এফডিআই বেড়েছে। যার নেপথ্যে মূল অবদান রাখে আসিয়ান জোটভূক্ত দেশ যেমন ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর এবং থাইল্যান্ডের অর্থনীতি। এই দেশগুলোর পার¯পারিক অর্থনীতিতে বিনিয়োগ এফডিআইয়ের পরিমাণ বাড়াতে সহায়ক অবদান রাখে। ফলে এই অঞ্চলে ৩ শতাংশ বিদেশী পুঁজির প্রবাহ বাড়ে, যার পরিমাণ ১৪ হাজার ৯শ কোটি ডলার।
দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনীতিগুলোতে বিদেশী পুঁজির প্রবাহ বাড়ে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। যার সার্বিক আকার ৫ হাজার ৪শ কোটি ডলার। সবচাইতে বেশি পুঁজি পেয়েছে ভারত। দেশটিতে পুঁজিপ্রবাহ ২০১৮ সালে ৬ শতাংশ বেড়ে ৪ হাজার ২শ কোটি ডলারে উন্নীত হয়। একইসঙ্গে, বাংলাদেশ এবং শ্রীলংকা রেকর্ড পরিমাণ পুঁজি আকৃষ্ট করে। যার পরিমাণ যথাক্রমে ৩৬০ এবং ১৬০ কোটি ডলার। তবে পাকিস্তানে এফডিআই প্রবাহ ২৭ শতাংশ কমে ২৪০ কোটি ডলারে এসে দাঁড়িয়েছে। স¤পাদনা : ইকবাল খান


সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]