সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বললেন, দুর্নীতি রুখতে প্রয়োজন সৎ কর্মকর্তা, যা নেই বললেই চলে

আমাদের নতুন সময় : 25/09/2019


জুয়েল খান : কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বলেছেন, দুর্নীতি রুখতে হলে সবার আগে বড় বড় ব্যাংকের দুর্নীতিকে সামনে আনতে হবে, শেয়ারবাজারের দুর্নীতিকে সামনে এনে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। তা না করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বক্তব্য দিচ্ছেন, সারাদেশের দুর্নীতি রোধ করা হবে। মন্ত্রীর এই কথাটা একেবারে অবাস্তব। তিনি বলেন, সারাদেশের দুর্নীতিবাজদের আইনের আওতায় আনতে হলে বড় ধরনের অবকাঠামো প্রয়োজন। বর্তমান সরকারের রাজনৈতিক এবং প্রশাসনিক যে অবকাঠামো আছে, সেই অবকাঠামো দিয়ে সারাদেশের দুর্নীতি দমন করা সম্ভব নয়। দুর্নীতি দমন করতে হলে আইনি কাঠামো, জনবলের কাঠামো, সৎ সরকারি কর্মকর্তা এবং অফিসের কাঠামো তৈরি করতে হবে। যে কাঠামো এখন আমাদের নেই। আজকে থেকে সরকার যদি এই কাঠামো তৈরিতে কাজ করতে শুরু করে এবং উপযুক্ত ও সৎ জনবল থাকে তাহলে হয়তো আগামী পাঁচ বছরে দুর্নীতি দমন প্রক্রিয়া শেষ করা সম্ভব। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে আগামী পাঁচ বছর পর্যন্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কি মন্ত্রীর চেয়ারে থাকবেন, দুর্নীতি দমন কমিশন এ রকম থাকবে কিনা বা যেসব কর্মকর্তারা দেশব্যাপী দুর্নীতিবাজদের তালিকা তৈরি এবং তদন্ত করছেন সেসব কর্মকর্তারা তাদের নিজ অবস্থানে থাকবেন কিনা তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। আবার যেসব কর্মকর্তারা দুর্নীতির তদন্ত করছেন তারাও যে দুর্নীতিতে জড়িত কিনা সেটাও আমরা জানি না। সুতরাং মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যটি শুনতে মধুর লাগে, কিন্তু বাস্তবতা থেকে অনেক দূরে।
তিনি আরো বলেন, শাসকদলের অন্যতম কাজ হলো জনগণের মনে শান্তি দেয়া, নিরাপত্তা দেয়া, আস্থা দেয়া। যে দুর্নীতিগুলো বিচার করলে জনগণের মনে স্বস্তি আসে, আস্থা আসে সেই কাজগুলো সরকারকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে করতে হবে। এজন্য সরকারকে অভিযান শুরু করতে হবে সমাজের উচ্চস্তর থেকে, বড় দুর্নীতিবাজদের থেকে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]