• প্রচ্ছদ » » পিএইচডি ডিগ্রী থাকা মানেই তিনি বিরাট পণ্ডিত কিছু নয়


পিএইচডি ডিগ্রী থাকা মানেই তিনি বিরাট পণ্ডিত কিছু নয়

আমাদের নতুন সময় : 25/09/2021

আমিনুল ইসলাম : মানুষকে তার যোগ্যতা দিয়ে যাচাই করতে শিখুন। তার ডিগ্রী কিংবা টাইটেল দিয়ে নয়। গিয়েছি টেলিভিশনের এক টকশোতে। আমার পাশে যিনি বসে আছেন- মনে হলো তিনি আমাকে মোটেই গুরুত্ব দিচ্ছেন না। গুরুত্ব দেওয়া তো দূরে থাক, আমাকে ক্রমাগত ছোট করে কথা বলছেন। খানিক বাদে অন্য এক আলোচক যে-ই না আমাকে ড. আমিনুল ইসলাম বলে সম্বোধন করলেন, পাশের ভদ্রলোকের কথা বলার ধরণ পুরোপুরি বদলে গেলো। এইবার তিনি বার বার আমার দিকে তাকিয়ে কথা বলছেন। চমৎকার করে হেসে কথা বলছেন। এমনকি চলে আসার সময় আমার কাছ থেকে কার্ডও রাখলেন। আরেক আলোচনা অনুষ্ঠানে গিয়েছি। তারা আমার নাম ও পরিচয় জানতে চেয়েছে। আমি আমার নাম বলেছি এবং পরিচয় হিসেবে বলেছি শিক্ষক। খানিক বাদে অনুষ্ঠানের প্রযোজক জিজ্ঞেস করলেন- কোনো টাইটেল নেই নামের পাশে? এবার আমি বললাম-চাইলে ডক্টর লাগাতে পারেন।তিনি এবার বললেন- এটা আগে বলবেন না? এটাই তো দরকার। তিনি মহানন্দের সঙ্গে ডক্টর লাগিয়ে দিলেন। অথচ আমি দিতেই চাইনি। আমরা বাংলাদেশিরা আমার ধারণা এসব ডিগ্রী, টাইটেলকে খুব বেশি গুরুত্ব দেই। কেউ একজন নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়েছে মানে এমন না যে তিনি মহা জ্ঞানী কিছু। ভালো বিশ্ববিদ্যালয়েও খারাপ ছাত্র থাকে। আবার কেউ একজন অতি সাধারণ কোথাও থেকে পড়ে আসা মানেই এই না- সে কিছু জানে না। কারণ সাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও ভালো ছাত্র থাকে। আপনি যদি তাকে প্রথমেই বাতিলের খাতায় ফেলে দেন, তাহলে সে তার যোগ্যতা দেখাবে কি করে?কেউ একজনের পিএইচডি ডিগ্রী থাকা মানেই তিনি বিরাট পণ্ডিত কিছু নয়। বরং তিনি কি বলছেন, সেটা কি যুক্তি যুক্ত কিনা, সেটা যাচাই করুন। তার টাইটেল দিয়ে কেন তাকে গুরুত্ব দিতে হবে? দেশে তো এখন পুলিশ অফিসার, আর্মি অফিসাররাও পিএইচডি করে ফেলছেন ফুল টাইম কাজ করা অবস্থায়। তাদের নামের পাশেও কিন্তু ডক্টর আছে। অনেকে তো আবার কপি-পেস্ট করেও পিএইচডি নিচ্ছেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে- কেন তারা এই ডিগ্রীর পেছনে ছুটছেন? কারণ ডিগ্রী থাকলেই, টাইটেল থাকলেই আমাদের সমাজে আলাদা গুরুত্ব দেওয়ার একটা ব্যাপার প্রচলিত আছে। অথচ ইউরোপে এতো বছর থাকছি, কখনো মনে হয়নি পিএইচডি ডিগ্রী থাকলে কেউ আলাদা গুরুত্ব দেবে। কোথাও চাকরির ইন্টার্ভিউ দিতে গেলে কেউ এসব চেয়েও দেখে না। উল্টো যাচাই করে- আপনি কি পারেন। কি করেছেন এবং কি করতে পারবেন। আর আমরা আছি টাইটেলের পেছনে। ভালো করে উত্তর গোলার্ধ- দক্ষিণ গোলার্ধ বলতে কি বুঝায় সেটা বলতে পারবে না। কিন্তু পিএইচডি ডিগ্রী নিয়ে ডক্টর হয়ে বসে আছেন। আমরা তাদেরকেই বিশাল জ্ঞানী মনে করছি। আর আমরা কিনা এখানে জীবনে কোনোদিন নামের পাশে টাইটেলই ব্যবহার করি না, যদি না একদম দরকার না হয়। মানুষকে মূল্যায়ন করুন তিনি কী বলছেন, কী করছেন এবং কী করতে পারবেন সেটার উপর ভিত্তি করে। নামের পাশে কিছু ব্র্যান্ড কিংবা টাইটেল দিয়ে নয়। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]