[১]গাজীপুরে উঠতে শুরু করেছে শীতের আগাম সবজি, দাম চড়া

আমাদের নতুন সময় : 26/09/2021

জে এস সবুর: [২] বাজারে শীতের আগাম সবজি আসতে শুরু করেছে। কিন্তু দাম ক্রেতাদের নাগালের বাইরে। কেজি প্রতি ৫০ থেকে ১০০ টাকা দরের নিচে মিলছে না কোন সবজি। [৩] গাজীপুর মহানগরীর কাচা বাজারগুলুতে এক সপ্তাহের ব্যবধানে সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে। দফায় দফায় বাড়ছে সবজির দাম।সঙ্গে সব ধরনের মাছ মুরগি ও ডিমের দামও চড়া। কাচামড়িচের ঝালও বেশ। ক্রেতারা বলছে বাজারে নতুন কয়েক ধরনের সবজি এসেছে।সরবরাহ আগের চেয়ে বেশি থাকলেও সেভাবে দাম কমেনি। আর বাজর কর্মকর্তা বলছে ঘনঘন দাম উঠানামা করার কারনে দাম বাড়তি থাকে। [৪] বিক্রেতারা বলছেন, সরবরাহ কম তাই দাম বাড়ছে।সরবরাহ বাড়লে দাম কমবে। শনিবার মহানগরীর বিভিন্ন কাঁচাবাজার দেখা যায়,আলু পেয়াজ বাদে অন্যান্য সব সবজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকার ওপরে। শিম ১৬০ টাকা,ফুলকপি ৮০ টাকা,বেগুন প্রকারভেদে ৬০,৮০ ও ১০০ টাকা,বাধাঁকপি ৬০ টাকা,পটল ৬০ টাকা,বরবটি ৮০ টাকা,গাজর ১২০ টাকা,শশা ৮০-১০০ টাকা,চিচিঙ্গা ৭০ টাকা,লাউ আকারভেদে ৫০-৭০ টাকা,কচুর লতি ৮০ টাকা, কাচা মরিচ ১৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।আর সবার প্রিয় টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা। [৫] নিত্যপ্রয়োজনীয় অন্যান্য দ্রব্যের দামও বেড়েছে।চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। তেলের দাম আগের মতো থাকলেও বেড়েছে মুরগি ও ডিমের দাম। ডিম প্রতি ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায় আর দোকানে প্রতি পিছ বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১১ টাকায়।প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা,সোনালী(কক) ৩০০ টাকা। [৬] এছাড়া বাজারে ইলিশের সরবরাহ থাকলেও আগের মতো চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। বড় (১ কেজির ওপরে) ইলিশের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০০-১৬০০ টাকায়।আর মাঝারি আকারের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৯০০ টাকায়। ছোট আকারের ইলিশ ৫৫০-৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।অন্যান্য মাছের মধ্যে রুই কেজি প্রতি ২৫০-৩৫০ টাকা,কাতল ২৫০-৩০০ টাকা,পাঙ্গাশ ১২০-১৬০ টাকা, তেলাপিয়া ১২০-১৪০ টাকা,গলদা চিংড়ি ৫৫০-৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।হাড়িনাল বাজারের সবজি বিক্রেতা কালাম মিয়া বলেন,শিম,বাঁধাকপি, ফুলকপি ও টমেটার নরবরাহ বেড়েছে।তবে বাজারে যে পরিমাণ চাহিদা রয়েছে তার তুলনায় সরবরাহ কম। তাই দাম বেশি। কিছু দিনের মধ্যে দাম কমে আসবে কারন শীতের সব সবজি চলে আসবে। [৭] জয়দেবপুর বাজারের মুরগি ব্যাবসায়ী মনির সরকার বলেন,মুরগির খাবারের দাম বাড়তি। করোনায় লোকশানে অনেক প্রোল্টি ফার্ম বন্ধ হয়ে গেছে । ফলে বাজারে মুরগি সরবরাহ কমেছে।হোটেল রেস্তোরায় বিক্রি বেড়েছে। এত বাজারে মুরগির চাহিদা বেড়েছে।ফলে সব মিলিয়ে মুরগির দাম বেড়ে গেছে।মহানগরীর জয়দেবপুর বাজারে সবজি কিনতে এসছিলেন শিক্ষক ফরিদ আহম্মেদ। [৮] তিনি বলেন,শীত আসছে।বাজারে শীতের আগাম সবজিও আসছে। সবজির পরিবর্তে অন্য কিছু কিনতে হচ্ছে।নগরীর ব্যাস্ততম হাড়িনাল বাজারে বাজার করতে আসা ফাতেমা বেগম বলেন প্রয়োজনীয় সবকিছুর দাম ব্যাপক চড়া। সাধ্যের বাহিরে সবকিছুর দাম। ৫০ টাকার নিচে সবজি পাওয়া যায় না। জিনিসপত্রের এমন দামে আমাদের মতো স্বল্প আয়ের মানুষগুলো বেশি বিপদে রয়েছে। সম্পাদনা: সোনিয়া আক্তার

 

 

 

 

সম

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বাজার কর্মকর্তারা নিয়মিত বাজার পরিদর্শন করলে দাম কিছুটা নিয়ন্ত্রণ থাকতো।

 

 

[৮] বাজার কর্মকর্তা আব্দুস সালাম জানান,আমরা মনিটরিং কার্যক্রম চালাচ্ছি। কিন্তু মনিটরিং কার্যক্রম আরও বাড়াতে হবে।প্রতিদিন আমাদের দুটি করে টিম বের হচ্ছে। দামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,ব্যবসায়ীরা যে পণ্য কিনে আনে তখন তাদের ভাউচারে উল্লেখ থাকে উক্ত পণ্য খুচরা ও পাইকাির কত টাকা হারে লাভ করবে।দাম বাড়ার বিষয়ে তিনি আরও বলেন ব্যাবসায়ীরা যখন কোন পণ্যের দাম বেড়ে যায় তখন আগের কেনা পণ্যও বেশি দামে বিক্রি করে আবার যখন কমে যায় তখন এরা বেশি দামে কেনার কারনে নতুন করে দাম কমায় না। ঘন ঘন দাম উঠানামা করার কারণেও দাম বাড়তি থাকে। সম্পাদনা: সোনিয়া আক্তার




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]