• প্রচ্ছদ » » জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছি তো? নাকি জিহ্বাই আমাদের নিয়ন্ত্রণ করছে?


জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছি তো? নাকি জিহ্বাই আমাদের নিয়ন্ত্রণ করছে?

আমাদের নতুন সময় : 20/10/2021

ফারুক চৌধুরী

একটি মিশরীয় প্রবাদ আছে চুপ থাকা নিয়ে, ‘কোলাহল যদি রূপার তৈরি হয়, নিরবতা তবে সোনার তৈরি।’ আরবি প্রবাদটাও অসাধারণ, ‘তুমি তখনোই কথা বলো যখন তা চুপ থাকার চেয়েও সুন্দর।’ -কেন চুপ থাকাকে এতো গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে? -কারণ জিহ্বা দ্বারা সংশ্লিষ্ট গুনাহ গুলো আমাদের ভালো আমলগুলোকে নষ্ট করে দিচ্ছে। এবার জেনে নেওয়া যাক জিহ্বা দ্বারা সৃষ্ট কবিরা গুনাহ সমূহ : [১] মিথ্যা কথা বলা। [২] মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়া। [৩] মিথ্যা শপথ করা। [৪] গীবত করা। [৫] পরনিন্দা করা [৫] অভিশাপ দেওয়া। [৬] খোঁটা দেওয়া। [৭] চোগলখোরি করা।
আমরা সারাদিনে যতো কথা বলি তার বেশিরভাগই দেখা যায় অপ্রয়োজনীয় এবং মিথ্যাচার ও গীবতে পরিপূর্ণ। অথচ মুখ নিঃসৃত প্রতিটি শব্দই লিপিবদ্ধ হচ্ছে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘মানুষ যে কথাই উচ্চারণ করুক না কেন তা লিপিবদ্ধ করার জন্য তৎপর প্রহরী তার নিকটেই রয়েছে।’ (সূরা কাফ: ১৮)। হাশরের ময়দানে দেখা গেলো আমাদের পূণ্যের চেয়ে পাপের পাল্লা ভারি। অবাক! কখনো কারো ক্ষতি করিনি, কারো প্রতি অন্যায় করিনি, তারপরো এ অবস্থা কেন? তখন উত্তর আসবে, ‘এগুলো তোমার মুখ নিঃসৃত পাপের ফল।’
আল্লাহর রাসুল (সাঃ) এ জন্যই বলে গেছেন, ‘অধিকাংশ মানুষ জিহ্বা দ্বারা সংঘটিত পাপের কারণে জাহান্নামে যাবে।’ (তিরমিযিঃ ১৬১৮)। তাহলে কী করণীয়? এর সমাধানও রাসুলুল্লাহ (সা.) দিয়ে গেছেন। ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ ও পরকালের প্রতি ঈমান রাখে সে যেন উত্তম কথা বলে নতুবা চুপ থাকে।’ (মিশকাত হা/৪২৪৩)। আমাদের জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছি তো? নাকি জিহ্বাই আমাদের নিয়ন্ত্রণ করছে? প্রতিনিয়ত আমাদের জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করার অভ্যাস করা উচিত। ঋধৎঁশ ঈযড়ফিযঁৎু’র ফেসবুক ওয়ালে লেখাটি পড়ুন।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]