• প্রচ্ছদ » » গ্রন্থ সমালোচনা : মোস্তফা পাশার দৈবচয়ন


গ্রন্থ সমালোচনা : মোস্তফা পাশার দৈবচয়ন

আমাদের নতুন সময় : 05/12/2021

খোশরোজ সামাদ : সংখ্যা দিয়ে সাহিত্যের অতলান্তিক গভীরতা পরিমাপ করা যায় না। কবিতা তো নয়ই। ‘দৈবচয়ন’ কবি মোস্তফা পাশার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ হলেও কবিতার সড়কে তাঁর যাত্রা প্রায় তিন দশক। তিনি দীর্ঘদিন প্রকারন্তরে স্বেচ্ছা নির্বাসন নিয়েছিলেন। দেশবরেণ্য কাব্য ব্যক্তিত্বদের পৌরহিত্যে অনলাইনে প্রকাশনা উৎসবের মধ্যে সাড়ম্বরে প্রাপ্ত ‘দৈবচয়ন’ বাংলাভাষার কাব্যমোদী বিদগ্ধজনদের বলিয়েছে ‘এতোদিন কোথায় ছিলেন’? এই প্রশ্নের উত্তরের চেয়ে সুধীজনদের প্রত্যাশা পাশা যেন কবিতার বাসভূমে থিতু হয়ে আমাদের উপহার দিন নিত্যনতুন অমিয় পঙক্তিমালা।
বইয়ের শিরোনাম ‘দৈবচয়ন’- এর মাঝেই কবির মেধাবৃত্তির স্বাতন্ত্র্য, বুদ্ধিদীপ্তি এবং প্রজ্ঞার ছাপ পাওয়া যায়। কবি পেশায় বিশেষায়িত চিকিৎসক। সংগত কারণেই নিজস্ব পঠিত বিষয়ের অনুষঙ্গ হিসেবে পরিসংখ্যান বিদ্যা তাঁর নিজস্ব জমিন। শাব্দিক বিবেচনায় ‘দৈবচয়ন’ এর অর্থ এলোপাথাড়ি নির্বাচন হলেও এই নামকরণের মধ্য দিয়ে কবির স্বভাবজাত সৌজন্য এবং বিনয় প্রকাশ পেয়েছে। কেননা গ্রন্থবদ্ধ ৫৬টি কবিতার কোনোটিই এলোপাতাড়ি তো নয়ই বরং বিষয় নির্বাচন, ছন্দ, অনুপ্রাস, শব্দচয়ন, উপমা উৎপ্রেক্ষায় ৫৬টি কবিতা শুধু উপস্থাপিতই হয়নি বরং পরিণত এবং বার্তাবহ হয়েছে। উৎসর্গে পাশা লেখেন ‘প্রিয় পৃথিবী, প্রিয় পরিবার, প্রিয় বন্ধু’। উৎসর্গের পুষ্পারতিতে কবির মানস চেতনার প্রতিবিম্ব রৌদ্র করোজ্জ্বল হয়ে ফুটে উঠেছে।
কবি ‘গ্রহ গ্রহান্তর’- এর ‘আলো অন্ধকার’- এ ‘মা’য়ের ‘অমলিন ভালোবাসা’র সন্ধান করেছেন’। ‘তর্জনীর সম্মোহন’-এ ‘জ্যোতির্ময়’ ‘অন্তরে মুজিব’ ধারণ করে ‘জয় বাংলার জয়’ বলে ‘বিজয়ের গান’ গেয়েছেন। কবি নন্দনতত্ত্বের কঠিন পরীক্ষার কষ্টি পাথরে পরীক্ষিত। তাই ‘বালিকা’র ‘ভুলে ভরা ভুল’ ‘অমলিন ভালোবাসায়’ কবির মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেছেন। কবি লেখেন, ‘মা ছিলো আমার এগিয়ে যাওয়ার দুর্নিবার প্রেরণা’। আজ পাশার সামাজিক এবং পেশাগত অবস্থান আকাশচুম্বী। এই অবস্থানে আসতে তাঁর মায়ের অবদানের কথা মনে করে মাতৃহারা সকল পাঠক অশ্রু ধরে রাখতে পারবে না। কবিতার গ্রামার, কবিতার এনাটমি তাঁর আত্মস্থ। ‘সিঁড়ি সংলাপ’ শিরোনামের কবিতায় কবি শব্দের সিঁড়ি বেয়ে উঠে সেটি প্রমাণ করেছেন। পাশার আরেকটি পরিচয় বিশেষ প্রাসঙ্গিক তিনি ইংরেজি ভাষাতেও সমদক্ষতার সঙ্গে কাব্য রচনা করতে পারেন। এটি একটি দুর্লভ ক্ষমতা। শুধু বর্তমানেই এপার বাংলাতেই নয় এপার বাংলা এবং ওপার বাংলা মিলে আধুনিক বাংলা কাব্য সাহিত্যের ইতিহাসে উভয় ভাষার কাব্য রচয়িতা কবির সংখ্যা হাতে গোনা কয়েকজন মাত্র।
কবি তাঁর মানস পিতার পরিচয় কাব্যগ্রন্থটির সর্বশেষ দুটি পঙতিতে লিখেছেন- ‘কার হতে পারে- বজ্রকণ্ঠ ধ্বনির সঙ্গে উত্তোলিত এ তর্জনী’? ‘হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের- বাংলার নয়নমণি’। পাঞ্জেরি পাবলিকেশন্স লি. থেকে প্রকাশিত বইটির লিখিত মূল্য ২০০ টাকা হলেও ঢাকাসহ দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে রকমারি ডট কম মোবাইলে ০১৫১৯৫২১৭৯১ রিং করলে ২৫ শতাংশ ছাড়ে ১৫০ টাকায় দ্রুততম সময়ে হোম ডেলিভারি দেওয়া হয়। দুই তারকা সমৃদ্ধ উচ্চ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তার পর্বতপ্রমাণ ব্যস্ততা থাকলেও কবি যদি লেখালেখির ধারাবাহিকতা রাখেন তবে বাংলা কাব্য সাহিত্যের ঊষর মরু যে নতুন স্রোতবহায় সিক্ত হবে সেই আশাবাদ সবার।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]