• প্রচ্ছদ » » দুই বছর না যেতেই সুস্থ লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হলো কেমন করে?


দুই বছর না যেতেই সুস্থ লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হলো কেমন করে?

আমাদের নতুন সময় : 05/12/2021

মারুফ কামাল খান: জীবন-মরণের সন্ধিক্ষণে পৌঁছেও খালেদা জিয়া সঠিক চিকিৎসার সুযোগ পাচ্ছেন না। এর কারণ তাঁর ওপর সরকার শর্ত ও বিধিনিষেধ আরোপ করে রেখেছে। এতে প্রতিদিনই এ সংশয় বাড়ছে যে, উপযুক্ত চিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে বা সূক্ষ্ম অপপরিকল্পনায় খালেদা জিয়ার মৃত্যু ঘটানো হতে পারে। মরে যেতে পারি আমরাও কিংবা মেরে ফেলা হতে পারে আরও অনেককেই। কিন্তু একটা জ্বলন্ত প্রশ্ন আজ তুলেছেন অনেকেই। এ প্রশ্নটা কিন্তু সদুত্তর না নিয়ে মরবে না। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে আদালতে পিজি হাসপাতালের চিকিৎসক প্যানেল ও প্রশাসন মিলে বন্দী খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছিলো। তাতে তাঁর যকৃত বা লিভারের কোনো রোগের কথাই ছিলো না। তাঁরা কি দেশের সর্বোচ্চ আদালতকে মিথ্যা রিপোর্ট দিয়েছিলেন? নাকি কেউ স্লো পয়জন প্রয়োগের মাধ্যমে তাঁর দ্রুত লিভার সিরোসিস নিশ্চিত করে চিকিৎসার সুযোগের নামে দণ্ড স্থগিত করেছিলেন? দু’বছর না যেতেই সুস্থ লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হলো কেমন করে? লিভারের রোগ সিরোসিস পর্যায়ে যেতে কতো বছর লাগার কথা? এ প্রশ্নের জবাব সরকার, কারাগার ও পিজি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে একদিন তো দিতেই হবে। এড়াবার রাস্তা নেই।
বিশেষ দ্রষ্টব্য: আরেকটা প্রশ্নের জবাবও কারও কাছ থেকে পাওয়া যায় না। কোনোরকম তছরুপ না হওয়া সত্ত্বেও বানোয়াট অভিযোগে দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিতর্কিত রায়ে বেগম জিয়াকে জেলে রাখা হয়। অথচ আজও এ মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়নি। আগেই তাঁকে তড়িঘড়ি করে জেলে পাঠানো হয়। সর্বোচ্চ আদালতের আপিল বিভাগে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল পেন্ডিং রয়েছে শুনানির অপেক্ষায়। যদি আপিলের রায়ে খালেদা জিয়া খালাস পান বা তাঁকে দেওয়া দণ্ডাদেশ খারিজ হয়ে যায় তখন কী হবে? এ সাজা ফিরিয়ে নিতে পারবেন? বিচারাধীন মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তির আগে সরকারের প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী এই সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে জেল খাটতে বাধ্য করেছেন। এমন নজির কি জগতে কোনো সভ্য দেশে আছে? এগুলো নাকি প্রতিহিংসা নয়, খালেদা জিয়ার প্রতি মানবতা প্রদর্শন। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]