• প্রচ্ছদ » » অবহেলিত কিশোর কুমারের সঙ্গে একদিন


অবহেলিত কিশোর কুমারের সঙ্গে একদিন

আমাদের নতুন সময় : 16/01/2022

খালিদ খলিল

[২] একমাত্র গায়ক যাঁকে শেষ করার জন্য তাঁরই দেশের নেতা ও পলিটিকাল পার্টিগুলো একসময় উঠেপড়ে লেগেছিলো। তিনিই একমাত্র গায়ক যিনি কোনো সরকারের কাছ থেকে সম্মান পাননি। আয়কর দফতর তাঁর পেছনে লেগে থাকতো সারাদিন। এমনকি রেডিওতে পর্যন্ত তাঁর গান বন্ধ করে দেওয়া হয়। তাঁকে কোনো সিনেমার গান না গাইতে দেওয়ার জন্য ছবির পরিচালক থেকে শুরু করে সংগীত পরিচালক এবং মিউজিক্যাল কোম্পানি সবাইকে বলা হয় কিশোর কুমারকে নিলে সেই সিনেমা ও তাঁর গান ব্যান করে দেওয়া হবে। [৩] তাহলে অপরাধ কী ছিলো কিশোর কুমার এর? ঘটনা ছিলো সামান্য: তখনকার একটি বিশেষ পলিটিকাল পার্টির নেত্রীর ছোট ছেলে কিশোরকে বিনা পয়সায় তাদের পার্টির অনুষ্ঠানে গান করতে বলেন। কিশোর কুমার বলেছিলেন, আমি বিনা পয়সায় গান গাই না। এই ছিলো তাঁর অপরাধ। এজন্য তাঁকে এতো হেনস্তা, এতো অপমান সহ্য করতে হয়।
[৪] দেখে এলাম, আজ পর্যন্ত এতো সরকার এসেছে কিন্তু কিশোর কুমার তাঁর প্রাপ্য সম্মান পাননি। একটি ভাস্কর্য আছে, আছে তাঁর নামে পার্ক যা দেখে মনে হয়- আর কতোকাল তাঁকে রাষ্ট্রীয়ভাবে অপমানিত হতে হবে। বেঁচে থাকতে কিশোর কুমার তাঁর স্ত্রী লিনা চান্দভারকারকে একবার বলেছিলেন, ‘আমি যখন থাকবো না তখন দেখো লোকে কেমন খুঁজছে আমায়। আমার কণ্ঠের ঝলক কারও গলায় পেলে তাঁকে নিয়ে লোকে পাগল হয়ে যাবে, কিন্তু আমায় পাবে না’। ঠিক তাই। আমরা শ্রোতা সাধারণ এখনো কিশোর কুমারকে খুঁজি। যাঁর কণ্ঠে তাঁর গান শুনি তাঁকেই কিশোর বলে মাথায় তুলে নিই। [৫] তাই বলি, যতোদিন গান থাকবে ততোদিন কিশোর কুমারের নাম থেকে যাবে মানুষের হৃদয়ে। [৬] কিশোর কুমার গাঙ্গুলি, প্রকৃত নাম ছিলো আভাষ কুমার গঙ্গোপাধ্যায় (আগস্ট ৪, ১৯২৯- অক্টোবর ১৩, ১৯৮৭)। তিনি ছিলেন ভারতীয় বাঙালি গায়ক, গীতিকার, সুরকার, অভিনেতা, চলচ্চিত্র পরিচালক, চিত্রনাট্যকার এবং রেকর্ড প্রযোজক। সাধারণত তিনি ভারতীয় চলচ্চিত্র শিল্পের সর্বাধিক সফল এবং সর্বশ্রেষ্ঠ প্লেব্যাক গায়ক হিসেবে বিবেচিত হন। [৭] কিশোর কুমার ১৯২৯ সালের ৪ আগস্ট জন্ম গ্রহণ করেন এবং তিনি ৪র্থ সন্তান। তিনি জীবনে ৪টি বিয়ে করেন, চলচ্চিত্র জীবনে ৪টি বাংলা ফিল্মে অভিনয় করেন।


সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]